সহজেই কথা বলার অ্যাপ আনছে দেশীয় দুই কোম্পানি

12

অ্যাপে কথা বলার সেবা চালু করতে চাইছে দেশীয় দুই কোম্পানি। লিংক থ্রি টেকনোলজি এবং মেট্রেনেট বাংলাদেশ ইতোমধ্যে এই অ্যাপ তৈরি করে বিটিআরসির কাছে তা চালুর জন্য আবেদন করেছে।

মেট্রোনেট বাংলাদেশের সিইও সৈয়দ আলমাস কবীর টেকশহরডটকমকে জানান, হোয়াটসঅ্যাপ-ভাইবারের মতো কথা বলার সুবিধা রেখে দেশের ব্যবহারকারীদের জন্য বিশেষ কিছু ফিচারসহ এই অ্যাপ তৈরি করেছেন তারা।

‘বাংলাদেশে হোয়াটসঅ্যাপ-ভাইবারের মতো বিদেশী অ্যাপগুলোর কোনো জবাবদিহিতা নেই। এখানে দেশ কোনো রেভিনিউ পাচ্ছে না। এখন একই সেবা যদি বাংলাদেশি কোম্পানিগুলো দেয় সেখানে জবাবদিহি তো থাকবেই সঙ্গে সরকার অনেক রেভিনিউ পাবে।’ বলেন আলমাস।

লিংক থ্রির এফটিটিএক্স মার্কেটিং ম্যানেজার মাশহুরুল আমিন নবীন টেকশহরডটকমকে জানান, মূলত ইন্টারনেটভিত্তিক টেলিফোন বা আইপি টেলিফোনি সেবাকেই অ্যাপে দিতে চাইছেন তারা।

তিনি বলেন, ‘আইপি টেলিফোনি অপারেটররা (আইপিটিএসপি) এখন ডেস্কটপে ব্যবহারের জন্য সফট ফোনের এবং সাধারণভাবে ব্যবহারে টেলিফোন সেট বা হার্ডফোনের অপশন দিচ্ছে। একজন গ্রাহক এই আইপি ফোন ব্যবহারের মবিলিটি চান। তখন তিনি গুগল প্লে থেকে এ সংক্রান্ত অ্যাপ ডাউনলোড করলেও দেখা যায় সেখানে অনেক পোর্টের লিমিটেশন থাকে আবার টেলকো হতে পোর্টগুলো বন্ধ থাকে। আবার ওয়াইফাই দিয়ে কথা বলতে পারা গেলেও জিপিআরএস, থ্রিজি-ফোরজি দিয়ে কথা বলতে পারেন না।’

‘এই বিষয়গুলো ভেবেই নিজেদের এই অ্যাপ তৈরি।  হোয়াটসঅ্যাপ-ভাইবারে কিন্তু ইন্টারনেট সংযোগ ছাড়া সাধারণ মোবাইল নেটওয়ার্কে বা ল্যান্ডলাইনে কথা বলা যায় না। এই অ্যাপে ইন্টারনেট, সাধারণ মোবাইল নেটওয়ার্ক বা ল্যান্ডফোন যেকোনো মাধ্যমে কথা বলা যাবে।’ বলছিলেন মাশহুরুল আমিন।

লিংক থ্রির এই কর্মকর্তা জানান, এই সেবা বিনামূল্যে না হলেও বেশ কম মূল্যে। সাধারণত আইপি ফোন হতে আইপি ফোনে কথা বলতে কোনো খরচ নেই। আর সাধারণ মোবাইল নেটওয়ার্কে কথা বলার খরচ মোবাইল অপারেটগুলো হতে কম। আর ল্যান্ডফোনের ক্ষেত্রে সরকারের প্রচলিত চার্জ হবে।অ্যাপটি চালু করতে তারা পুরোপুরি তৈরি। বিটিআরসির অনুমতি পেলে দু’একদিনেই এটি চালু করা যাবে।

দেশে এখন আইপিটিএসপি সেবার জন্য ৪১ টি প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স রয়েছে।

বিটিআরসির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানাচ্ছেন, অনেকদিন হতেই বিষয়টি নিয়ে কথা বলছেন আইপিটিএসপিরা। এখন অনুমতির ক্ষেত্রে এই সেবা সংক্রান্ত সংশ্লিষ্ট স্টেকহোল্ডার ও ইকোসেস্টেমের সাপেক্ষে মূল্যায়ন করে বিষয়টি বিবেচনা করা হবে।

এমনিতেই ভাইবার-হোয়াটসঅ্যাপসহ অ্যাপভিত্তিক ভয়েস ও ভিডিও কলের বিভিন্ন অ্যাপের কারণে রাজস্ব হারাচ্ছে মোবাইল অপারেটরগুলো। এখন আইপিটিএসপিরা যদি আনুষ্ঠানিকভাবে অ্যাপে এই ভয়েস কল সেবা দিতে শুরু করে তাহলে অপারেটরগুলোর রাজস্বে আরও প্রভাব পড়বে।

সূত্র : টেকশহর

Leave A Reply

Your email address will not be published.