সাইবার ক্রাইম রোধে ‘সফটওয়্যার টেস্টার’ তৈরির ফ্রি কোর্স করাবে পিপলএনটেক

10

নিউইয়র্ক থেকে: যুক্তরাষ্ট্রে অডজবে লিপ্ত বাঙালিদের বিনামূল্যে আইটি কোর্স প্রদানে মিলিয়ন ডলারের স্কলারশিপ প্রদানের পর বাংলাদেশেও সাইবার ক্রাইম ঠেকাতে ‘সফটওয়্যার টেস্টার’ তৈরির লক্ষ্যে ফ্রি কোর্সের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে ‘পিপল এন টেক ইন্সটিটিউট’।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক এই ইন্সটিটিউটের ঢাকায় গ্রীণরোড ও পান্থপথের কর্ণারে অবস্থিত ক্যাম্পাসে এ বছরই এই কোর্স প্রদানের কর্মসূচি শুরু হবে। মার্কিন আইটি সেক্টরে উচ্চ বেতনে চাকরি পাবার প্রয়োজনীয় কোর্স প্রদানে গত দেড় দশক যাবত কর্মরত ভার্জিনিয়াভিত্তিক এই ইন্সটিটিউটের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও প্রকৌশলী আবু হানিপ ২২ নভেম্বর এনআরবি নিউজের এ সংবাদদাতাকে এ তথ্য জানান।

আবু হানিপ বলেন, ‘সাইবার ক্রাইম ঠেকাতে প্রয়োজন ব্যবহৃত সফটওয়্যারগুলোর গুণগত মান যাচাই করার। বিশেষ করে ব্যাংকসহ গুরুত্বপূর্ণ সরকারি প্রতিষ্ঠানে ব্যবহৃত সফটওয়্যারের নিরাপত্তা সুরক্ষায় টেস্টিংয়ের বিকল্প নেই। অথচ বাংলাদেশে দক্ষ টেস্টার তৈরিতে এখন পর্যন্ত ব্যাপক কোন কর্মসূচি দেখা যাচ্ছে না।’

‘গুণগতমান ঠিক রেখে সফ্টওয়্যারগুলো ব্যবহারের স্বার্থে চাই প্রফেশনাল টেস্টার। কেবলমাত্র তারাই নিশ্চিত করতে পারবেন ফাংশনাল টেস্টিং, পারফর্ম্যান্স টেস্টিং এবং পেনিট্রেশন টেস্টিংয়ের ব্যাপারটি’-এ অভিমত পোষণ করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের আইটি স্পেশালিস্ট ইঞ্জিনিয়ার আবু হানিপ।

‘একটি সফটওয়্যারের মান নির্ভর করে দৃষ্টিনন্দন ডিজাইন, সঠিক কার্যকারিতা, নির্ভরশীলতা, বিশ্বস্ততা এবং স্থায়িত্ব। সফটওয়্যার প্রস্তুত ও ব্যবহারকালিন সময় এসব শর্ত আশানুরূপ পর্যায়ে রাখা অত্যন্ত জরুরি। সফটওয়্যার উৎপাদনকালিন সময়ে এই গুণগুলো আছে কিনা তা নিরূপণের জন্য তথা সার্বিক মান নিয়ন্ত্রণের জন্যে টেস্টিং অত্যন্ত জরুরি। সুনির্দিষ্ট রিক্যুয়ারমেন্টের বিপরীতে নির্দিষ্ট পরিমাপ ও টোল ব্যবহার করে সফটওয়্যার টেস্ট করা প্রয়োজন। আর এজন্যেই দরকার প্রশিক্ষিত দক্ষ টেস্টার-যা বর্তমান বিশ্বে সর্বজন স্বীকৃত।

সার্বজনীনভাবে ব্যবহার্য সফটওয়্যারগুলো একদিকে সহজে ব্যবহার্য হওয়া প্রয়োজন, আবার সার্বজনীন প্রবেশাধিকার থাকার কারণে তা সাধারণত: অধিক হুমকির মুখে থাকে, যেমন ব্যাংকিং ও সরকারী তথ্য বিষয়ক সফটওয়্যার। এজাতীয় সফটওয়্যারের মান নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা ব্যতিত তা ব্যবহার করা খুবই ঝুঁকিপূর্ণ এবং তা বাংলাদেশে বিভিন্ন সময়ে প্রমাণিত হয়েছে।

ইঞ্জিনিয়ার হানিপ বলেন, বলার অপেক্ষা রাখে না যে, আন্তর্জাতিকমানের সফটওয়্যার টেস্টার তৈরি করা অত্যন্ত ব্যয়বহুল। একারণেই বাংলাদেশে টেস্টারের বড় অভাব। এহেন অবস্থার অবসানেই সফটওয়্যার টেস্টিং কোর্সের উপর বিনামূল্যে প্রশিক্ষণ প্রদানের এই কর্মসূচি নিয়েছে পিপলএনটেক। ঢাকায় পান্থপথ এবং গ্রীণরোর্ডের কর্ণারে পিপলএনটেকের ক্যাম্পাসেই বিনা ফি-তে টেস্টার কোর্স প্রদানের এই কর্মসূচি ডিসেম্বরেই শুরু হবে বলেও জানান আবু হানিপ।

আমেরিকায় আইটি সেক্টরে উচ্চ বেতনে কাজের উপযোগী কোর্স প্রদানের মধ্য দিয়ে সাফল্যের ধারাবাহিকতায় এবার বাংলাদেশেও সফটওয়্যার টেস্টিংয়ের উপর বিনামূল্যে প্রশিক্ষণ দেয়ার এ ঘোষণায় অনেকেই আনন্দিত।

উল্লেখ্য যে, গত এপ্রিল মাসে পিপলএনটেকের সিইও ইঞ্জিনিয়ার আবু বকর হানিপ স্কলারশীপ-২০১৮ ঘোষণা করেন। এই স্কলারশীপের আওতায় ২৮৩ জনকে আমেরিকাতে বিভিন্ন কোর্সে এক মিলিয়ন ডলারের বৃত্তি দেওয়া হয়।

পিপলএনটেক গত চৌদ্দ বছর ধরে সফটওয়্যার টেস্টিং, ডাটাবেজ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন, বিজনেস অ্যানালাইটিক্স সহ বিভিন্ন কোর্সে প্রশিক্ষণ দিয়ে ৬ হাজারের অধিক ছাত্র-ছাত্রীকে চাকরি সংগ্রহ করে দিয়েছে মার্কিন আইটি কোম্পানীতে। এর প্রায় সকলেই বাংলাদেশি। তারা উচ্চ শিক্ষিত হওয়া সত্বেও অডজবে প্রবাস-জীবন শুরু করেছিলেন। এখন তারা আমেরিকান স্বপ্ন পূরণের পথে থাবিত হচ্ছেন এবং প্রকারান্তরে বাংলাদেশের অর্থনীতিতেও অবদান রাখছেন মা-বাবা-ভাই-বোনকে নিয়মিতভাবে টাকা পাঠিয়ে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.